মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম।

আজ আমি আপনাদের সাথে কিভাবে আমার আমাদের হাতের smartphone ব্যবহার করে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারি এবং চ্যানেল পরিচালনা করতে পারি সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। যারা ইউটিউব চ্যানেল মোবাইল এ পরিচালনা করতে চান এই পোস্ট তাদের জন্যে। হেল্পফুল হবে।

বর্তমানে বিশ্বে ইন্টারনেট সেবা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে আর এই সকল ইন্টারনেট সেবার মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় একটি মাধ্যম হলো ইউটিউব। আমাদের যাদের হাতে স্মার্টফোনে ল্যাপটপ ডেস্কটপ আছে তারা প্রত্যেকেই কিন্তু আমাদের ডিভাইস ব্যবহার করে ইউটিউব চালিয়ে থাকি। আমরা যখন ইউটিউব এ ঢুকি তখন কিন্তু আমাদের আমাদের সামনে কিন্তু অনেক ভিডিও, নাটক, মুভি ইত্যাদি দেখতে পারি।

এখানে একটা ভাববার বিষয় এই ভিডিও গুলো করা বা কি ভাবে আপলোড করা হয়েছে ? এটাকি ইউটিউব কর্তৃপক্ষ আপলোড দিয়েছে? আপনি যদি এই সকল বিষয় সম্পর্কে ধারণা রাখেন তাহলে আমি আপনাদের কে বলবো যারা এই ভিডিওগুলো কষ্ট করে রেকর্ডিং করার পরে সেই ভিডিও আবার এডিট করে আপলোড দেয় তাদের একটা উদ্দেশ কিন্তু আছে।

তারা তো এমনিতেই এই ভিডিও আপলোড দিচ্ছে না। তাদের একটি উদ্দেশ সেটা হলো তারা টাকা ইনকাম করার জন্যে মূলত ভিডিওগুলো আপলোড দিয়ে থাকে। তবে এখানে কিছু মানুষ ভাইরাল হওয়ার জন্যে এবং কিছু তাদের কোম্পানি এর প্রচারন এর জন্যে ভিডিও আপলোড দিয়ে থাকে।

যাই হোক আপনি টাকা কমানোর জন্যে হোক, ভাইরাল হওয়ার জন্যে হোক বা ব্যবসা প্রচার এর জন্যে হোক আপনার অবশ্যই একটা ইউটিউব চ্যানেল দরকার। আর ইউটিউব চ্যানেল কি ভাবে খুলতে হয় কি ভাবে পরিচালনা করতে হয় সেই সম্পর্কে আপনার যদি ধারণা না থাকে তাহলে আপনি এই কাজ গুলো করতে পারবেন না।

আর সে জন্যে আজ আমি আপনাদের সাথে ইউটিউব চ্যানেল কি ভাবে খুলতে হয় সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। আর ইউটিউব চ্যানেল করতে পারবেন আপনার মোবাইল ফোন থেকে।

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে হয় সেই সম্পর্ককে হয়তো আমরা ইউটিউব বা গুগল এ সার্চ করেছি কিন্তু সঠিক গাইডলাইন না পাবার কারণে আমরা ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারি নাই। আবার অনেকেই ভাবছেন আমার তো কোনো ল্যাপটপ বা ডেস্টপ নাই কি করে ইউটিউব চ্যানেল খুলবো তাহলে? এমন ধারণা আপনার যদি থাকে তাহলে আপনি ভুল জায়গাতে আছেন। আপনার হাতের মোবাইল ফোন ব্যবহার করেই আপনি চাইলে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারবেন।

আজ আমি আপনাদের সেই পরামর্শ দেয়ার চেষ্টা করবো –

ইউটিউব চ্যানেল কিভাবে খুলবো।

ঊইকিপিডিয়া তত্থ মতে, ইউটিউব চ্যানেল ৪জন বন্ধু মিলে প্রতিষ্ঠিত করেন। ইউটিউব চ্যানেল প্রতিষ্ঠিত করা হয় 2005 সালের 14 ই ফেব্রুয়ারি তে। আর আপনি যদি ইউটিউব সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে এখানে ক্লিক ঊইকিপিডিয়া তে।

আপনার আমার মতো সাধারণ লোক সারা বিশ্বে কিন্তু ইউটিউব এর মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেল ক্রিয়েট করে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করছে। তবে ইউটিউব চ্যানেল খুললেই কিন্তু আপনি লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারবেন না।  এর জন্যে আপনার ধৈর্য ধরে কাজ করতে হবে। তাহলে একদিন আপনার ইউটিউব চ্যানেল গ্রও করবে এবং আপনি অনেক বড় স্থানে পৌঁছে যাবেন।

ইউটিউব চ্যানেল খুলতে কি কি প্রয়োজন

  • ইউটিউব চ্যানেল খোলার জন্য আপনাকে সর্ব প্রথমে একটি জিমেইল আইডি ক্রিয়েট করতে হবে।
  • আপনার একটি স্মার্ট ফোন, ল্যাপটপ বা কম্পিউটার এর যেকোনো একটি থাকা লাগবে।
  • আপনার চ্যানেল এর জন্যে একটি সুন্দর নাম খুজে বের করুন।

আপনার হাতে যদি একটি স্মার্ট ফোন থাকে তাহলে আপনি তাহলে আপনার এই ৩টি জিনিস সহজেই হয়ে যাবে। যেমন যদি আপনার একটা ফোন থাকে তাহলে আপনি সেই ফোন ব্যবহার করে খুব সহজে আপনি একটা জিমেইল তৈরী করতে পারবেন। এখন নাম এর বিষয় – আপনি একটা নাম পছন্দ করুন যার মাধ্যমে আপনি চ্যানেল করতে পারবেন।  আপনি চাইলে আপনার নিজের নাম ও ব্যবহার করতে পারবেন।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম দেখুন ধাপে ধাপে।

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খোলে আমি এখানে ধাপে ধাপে বিস্তারিত আলোচনা করছি – আপনি এই পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করেন।

ধাপ. ১. মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা

ইউটিউব চ্যানেল খোলার জন্যে সর্ব প্রথম আপনি আপনার ব্রাউজার থেকে  m.youtube.com এ যান অথবা smart youtube tv apk এপপ্স টিভি ডাউনলোড করে ইনস্টল করে নিন আপনার মোবাইলে।

যাই হোক m.youtube.com এ ঢোকার পরে আপনার ব্রাউজার এর উপরে ডানপাশে কর্নারে একটা sign in অপশন পাবেন। এবং এখন থেকে আপনি আপনি আপনার পূর্বের তৈরী করা জিমেইল দিইয়ে লগইন করে নিন। আর জিমেইল না থাকলে আপনি এখানে নতুন করে জিমেইল খুলে নিতে হবে।

ধাপ. ২। মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা

ডান পাশের কর্নারে sign in বা ম্যান আইকন আইকনে ক্লিক করার পর আপনি আপনার যে জিমেইল অ্যাকাউন্ট দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে চান সেটি দিয়ে সাইন ইন করে ফেলুন। সাইন ইন করার পর আপনার দ্বিতীয় ধাপ সম্পন্ন হয়ে যাবে।

ধাপ.৩ । মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা।

আপনার অ্যাকাউন্টে লগইন হবার পরে আপনার সামনে ঠিক পূর্বের মত অর্থাৎ প্রথম ধাপেই যে পদ্ধতিটি বলা হয়েছে ঠিক সেই রকম করতে হবে।

আপনার জিমেইল আইকনে ক্লিক করার পর আপনার সামনে কয়েকটি অপশন চলে আসবে সেখানে Your channel বা create a channel নামে একটা অপশন দেখতে পাবেন সেখানে ক্লিক করতে হবে। এখন আপনার তৃতীয় ধাপ সম্পন্ন হয়ে গেছে। বিস্তারিত জানতে নিচের ছবিটি ফলো করুন।

ধাপ.4 । মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা।

চতুর্থ নম্বার ধাপটি হচ্ছে এবার আপনাকে একটি সুন্দর নতুন ইউনিক নাম সিলেক্ট করতে হবে। Your channel এ ক্লিক করার পর আপনার না সামনে নাম দেওয়ার জন্য দুইটি অপশন চলে আসবে। এখানে এই ২টি অপসন এর মাঝে আপনি চাইলে প্রথম টি সিলেক্ট করতে পারেন। এই টি সিলেট করলে আপনার জিমেইল এর নাম ই হবে আপনার ইউটিউব নাম। এছাড়া পরের টা আপনি চাইলে আপনার পছন্দের নাম এখানে লিখতে পারেন।

ধাপ.5 । মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা।

আপনার চ্যানেলের নাম কি চয়েজ করার পর আপনার সামনে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করার সর্বশেষ কাজটি চলে আসবে। নাম দেওয়ার পরই আপনার সামনে যে পেজটি ওপেন হবে সেখানে create নামে একটা অপশন দেখতে পাবেন সেখানে ক্লিক করতে হবে। তো এখন আপনার ইউটিউব চ্যানেল টি তৈরি হয়ে গেছে। এখন বাকি আছে শুধুমাত্র ইউটিউব চ্যানেল সেটিং এবং কাস্টমাইজ করার নিয়ম।

ধাপ.6 । মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা।

Create অপশনে ক্লিক করার পর আপনার সামনে একটা পেজ ওপেন হবে যেটাতে দুটো অপশন পাবেন একটি হচ্ছে customize channel আর অপরটি হচ্ছে YouTube studio।তো আপনি এই অপশন দুটোর মধ্যে প্রথমটি অর্থাৎ customize channel এ ক্লিক করে আপনি আপনার চ্যানেলের নাম, ডেসক্রিপশন ইত্যাদি এডিট করতে পারবে। YouTube studio এই অপশনে ক্লিক করে আপনি আপনার চ্যানেলের এনালাইসিস করতে পারবেন এবং ভিডিও আপলোড ইত্যাদি করতে পারবেন।

ধাপ.7 । মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা।

আপনার চ্যানেলকে আরও সুন্দর করতে এবং আকর্ষিত করতে আপনার চ্যানেলের জন্য একটি কভার ফটো অ্যাড করতে হবে। তবে মনে রাখবেন আপনার কভার ফটো যেন 2560-1440 pixel সাইজের হয়।

কেমন লাগলো আমাদের আজকের পোস্ট তা কমেন্টস এর মাধ্যমে জানাতে ভুলবেন না। দেখা হবে পরবর্তী কোনো পর্বে সেই পর্যন্ত সবাই ভালো থাকবেন আল্লাহ হাফিজ।

Add Comment

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুনলাইক ফেসবুক
+ +