ভ্লাদিমির পুতিনের পীড়াপীড়ি সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করবে ভারতের, জেনে নিন কী প্রভাব পড়বে

ইউক্রেনে রাশিয়ার দ্রুত হামলার আজ পঞ্চম দিন (রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ৫ম দিন)।  এদিকে, বিশ্ব বিশেষজ্ঞদের মতে, ইউক্রেন সংকটের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে ভারত, থাইল্যান্ড ও ফিলিপাইন।  একই সঙ্গে বিপরীতে লাভবান হবে ইন্দোনেশিয়া।  তেল আমদানিকারক হওয়ার কারণে, ভারত অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে কারণ সারা বিশ্বে ক্রুড তেলের দাম ক্রমাগত বাড়ছে।

রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটের কারণে বিশ্ববাজার ঝুঁকিতে রয়েছে।  সারা বিশ্বের শেয়ার বাজার খারাপভাবে পুনরুদ্ধার করছে।  কিছু দেশের মুদ্রার মান প্রভাবিত হয়েছে।  এই ভূ-রাজনৈতিক উত্তেজনার খারাপ প্রভাব বিশ্ব বাজারে দেখা যায়।  বিখ্যাত আর্থিক ও গবেষণা সংস্থা নোমুরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেন সংকটের কারণে এশিয়ায় সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়তে পারে ভারতের ওপর (ইউক্রেন সংঘর্ষের প্রভাব ভারতের ওপর)।  আসুন জেনে নিই নোমুরা এই অনুমানের পেছনে কী কী যুক্তি দিয়েছেন।  যুদ্ধের মাঝে বৈদেশিক মুদ্রার গুরুত্ব বুঝে ১০ হাজার ডলারের বেশি উত্তোলন নিষিদ্ধ করা হয়েছে।  রুশ হামলায় ইউক্রেনের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।  তার আর্থিক পিঠও ভাঙার দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়েছে।

অপরিশোধিত তেলের দাম কি কাঁদবে?

অপরিশোধিত তেলের দাম আকাশচুম্বী হওয়ার প্রভাব সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলতে পারে ভারতকে।  ব্রেন্ট ক্রুডের দাম প্রায় 3 শতাংশ লাফিয়ে ব্যারেল প্রতি 105 ডলারে পৌঁছেছে।  গবেষণা সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ক্রুড তেল ও খাদ্যদ্রব্যের দাম ক্রমাগত বৃদ্ধির ফলে এশিয়ার অর্থনীতিতে খারাপ প্রভাব পড়বে।  ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি, দুর্বল চলতি হিসাব, ​​ক্রমবর্ধমান ঘাটতি এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির প্রভাব সমস্যাকে আরও খারাপ করে তুলবে।

ইকোনমিক টাইমস-এ প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সর্বশেষ পরিস্থিতির কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে ভারত, থাইল্যান্ড ও ফিলিপাইন।  অন্যদিকে, ইন্দোনেশিয়া তুলনামূলকভাবে লাভবান হবে।  বিশুদ্ধ তেল আমদানিকারক হওয়ায় ভারতের জন্যও অনেক ক্ষতি হবে।  কারণ তেলের দাম ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।  প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “অশোধিত তেলের দাম বৃদ্ধির ফলে ভোক্তা ও ব্যবসার ওপর মারাত্মক প্রভাব পড়বে।”  আমরা অনুমান করি যে তেলের দামে প্রতি 10% লাফানোর জন্য, জিডিপি বৃদ্ধিতে প্রায় 0.20% পয়েন্টের পতন হবে।

মুদ্রাস্ফীতি বাড়লে আপনার ওপর সরাসরি প্রভাব পড়বে।

একই সময়ে, QuantEco গবেষণা অনুসারে, ভারতের অপরিশোধিত ঝুড়িতে প্রতি লিটারে $10 বৃদ্ধি হলে 2022 সালের 9.2 শতাংশ বার্ষিক জিডিপি বৃদ্ধির পূর্বাভাস থেকে 10 বেসিস পয়েন্ট বৃদ্ধি কমাতে পারে।  ব্যাঙ্ক অফ বরোদার চিফ ইকোনমিস্ট মদন সাবনভিস বলেছেন, অপরিশোধিত ঝুড়িতে 10 শতাংশের স্থায়ী বৃদ্ধি WPI-ভিত্তিক মূল্যস্ফীতিকে 1.2 শতাংশ এবং সিপিআই-ভিত্তিক মূল্যস্ফীতি 0.3 থেকে 0.4 শতাংশ বাড়িয়ে দিতে পারে৷  যার সরাসরি প্রভাব পড়বে আপনার পকেট এবং আপনার রান্নাঘরের বাজেটে।  অর্থাৎ এটা স্পষ্ট যে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের এই পীড়াপীড়ির কারণে এখন ভারতে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়াকে (আরবিআই) মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে কিছু বড় সিদ্ধান্ত নিতে হতে পারে।

জিডিপি প্রবৃদ্ধি প্রভাবিত হবে

ইকোনমিক টাইমস-এ প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সর্বশেষ পরিস্থিতির কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে ভারত, থাইল্যান্ড ও ফিলিপাইন।  অন্যদিকে, ইন্দোনেশিয়া তুলনামূলকভাবে লাভবান হবে।

বিশুদ্ধ তেল আমদানিকারক হওয়ায় ভারতের জন্যও অনেক ক্ষতি হবে।  কারণ তেলের দাম ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।  প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “অশোধিত তেলের দাম বৃদ্ধির ফলে ভোক্তা ও ব্যবসার ওপর মারাত্মক প্রভাব পড়বে।”  আমরা অনুমান করি যে তেলের দামে প্রতি 10% লাফানোর জন্য, জিডিপি বৃদ্ধিতে প্রায় 0.20% পয়েন্টের পতন হবে।

এই ভূ-রাজনৈতিক উত্তেজনার আরেকটি খারাপ প্রভাব বিশ্ব বাজারে দেখা যায়।  বিখ্যাত আর্থিক ও গবেষণা সংস্থা নোমুরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেন সংকটের কারণে এশিয়ায় সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়তে পারে ভারতের ওপর (ইউক্রেন সংঘর্ষের প্রভাব ভারতের ওপর)।  আসুন জেনে নিই নোমুরা এই অনুমানের পেছনে কী কী যুক্তি দিয়েছেন।

এশিয়ায় ভারতের বেশি ক্ষতির আনুমানিক

রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটের কারণে বিশ্ববাজার ঝুঁকিতে রয়েছে।  সারা বিশ্বের শেয়ার বাজার খারাপভাবে পুনরুদ্ধার করছে।  কিছু দেশের মুদ্রার মান প্রভাবিত হয়েছে।

Add Comment

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুনলাইক ফেসবুক
+ +