সফটওয়্যার যখন অস্ত্র – সাইবার নিরাপত্তা

মাইক মারে একজন সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ। কাজ করেন স্যান ফ্র্যান্সিসকোর ‘লুকআউট’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানে।

মোবাইল ফোন এবং এতে সংরক্ষিত তথ্য কিভাবে নিরাপদ রাখা যায় সে বিষয়ে তারা পরামর্শ দেয় বিভিন্ন দেশের সরকার থেকে শুরু করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি পর্যায়ের ভোক্তাদের।

সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ

ফোনের ক্যামেরা মানুষের চোখের মতই, সামনে যা আছে সবই দেখতে পায়।

বিশ্বের সর্বাধুনিক এই গুপ্তচর প্রযুক্তি কিভাবে কাজ করে তা ব্যাখ্যা করছিলেন তিনি। তার মতে, এই প্রযুক্তি এতটাই শক্তিশালী এবং মারাত্মক যে একে একটি ‘অস্ত্র’ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

“যারা এই সফটওয়্যার তৈরি করেছে তারা আপনার ফোনের জিপিএসের মাধ্যমে আপনাকে সব জায়গায় অনুসরণ করতে পারে”, বলছেন মাইক মারে।

“ওরা যে কোন সময় আপনার ফোনের মাইক্রোফোন বা ক্যামেরা অন করতে পারে এবং আপনার চারপাশে যা ঘটছে তার সবকিছু রেকর্ড করতে পারে। আপনার ফোনে যত রকমের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ আছে, সবগুলোতে তারা ঢুকে পড়তে পারে। ওরা আপনার সব ছবি, কনট্যাক্ট, আপনার ক্যালেন্ডারের সব তথ্য, আপনার সব ইমেইল, যত রকমের ডকুমেন্ট – সব চুরি করতে পারে।”

“এটি কার্যত আপনার ফোনকে একটি আড়িপাতা যন্ত্রে পরিণত করে। যেটি দিয়ে তারা আপনার প্রতি মূহুর্তের গতিবিধির ওপর নজরদারি চালায়। আপনার ফোনের সব তথ্য চুরি করে।”

স্পাইওয়্যারের ব্যবহার নতুন কোন জিনিস নয়। বহু বছর ধরেই নানা রকমের স্পাইওয়্যার চালু আছে।

কিন্তু এই সর্বশেষ স্পাইওয়্যার এতটাই মারাত্মক যে এটি আসলে সাইবার নিরাপত্তার জন্য খুবই ভিন্ন ধরণের এক চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে।

কঠোর গোপনীয়তার পরও শেষরক্ষা হয়নি, এল চ্যাপো ধরা পড়েছেন।

এই স্পাইওয়্যারের একটা বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, এটি কারও মোবাইল ফোনের তথ্য আদান-প্রদানের সময় নয়, বরং ফোনে থাকা অবস্থাতেই চুরি করে।

এটি মোবাইল ফোনের যত রকমের কাজ, সব কিছুর নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। আর এই প্রযুক্তি এতটাই অত্যাধুনিক যে এটিকে সনাক্ত করা প্রায় অসম্ভব।

Add Comment

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুনলাইক ফেসবুক
+ +