প্রো ওয়েব ডেভেলপারের সঠিক মূল্যায়ন শিখুন!

৩ হাজার টাকায় যারা ওয়েবসাইট আবদার করেন, তারা একটু এভাবে চিন্তা করেন. “মাত্র ৫০ হাজার টাকায় নিজের বাড়ি! হ্যাঁ, আপনার নামে দলীল করে দেওয়া হবে। পুরো রেজিস্ট্রি খরচ ইনক্লুডেট। ”

এই অফার কী বিশ্বাসযোগ্য? কিংবা, এতে কি আসল কোন বাড়ি পাবেন? এটায় আপনি কি বাড়ি পাবেন- ফ্ল্যাট? নাকি ৫ তলা বিল্ডিং? নাকি টিনশেড পাকা ঘর? বেড়ার ঘরও কি সম্ভব. জমি ও রেজিস্ট্রি সহ?

কিংবা ধরেন, মাত্র ১০ হাজার টাকা মজুরীতে রাজমিস্ত্রি আপনার বাড়ি বানিয়ে দেবে। বাকি সব রিসোর্স আপনার। এতেও কি পসিবল? কয় বেলা কাজ পাবেন আপনি? কয়জন কাজ করবে? এই টাকাতে রাজের হেল্পারও তো পাবেন না! ঠ্যাকা পরেনি কারো।

হ্যাঁ! বাট অনলাইনে এই ঠ্যাকা অনেকেরই আছে। ২টাকা দিলেও, ২টাকাই তার লাভ। কাজ করে দেবে না, ব্লক মারবে। আর এক ধরনের ইন্টার্নি পাবেন, যারা বেকার সময়কে মনিটাইজ করার জন্য মফিজ খুঁজছে। আরো এক ধরনের পাবেন, যারা শিখছে. এক্সপেরিমেন্ট করছে. তাদের দরকার গিনিপিগ। আপনি সস্তার পেছনে দৌড়াতে দৌড়াতে এক্সপেরিমেন্টাল জিনিসকেই মার্কেট স্ট্যান্ডার্ড হিসেবে দাড় করাতে চাইছেন। বাট, লাভ নেই। আপনার এই চাওয়াটা আপনার কাজের বেলাতেই বুমেরাং হয়ে ফিরে আসবে!

এবার বলি, কেন?

একজন প্রফেশনাল ওয়েব ডেভেলপার- যার মাসে ৫০ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকা ইনকাম. সে আপনার কাজ নিলে, রেপুটেশনের জন্য হলেও পারফর্মেন্স নিয়ে ভাববে। সেটা করতে গেলে তারপরিশ্রম দিতে হবে, সময় নিয়ে। তার মাসে লোয়েস্ট ইনকাম যদি ৫০ হাজারও হয়, ৮০ বাদ দিলাম; আপনার প্রজেক্ট এবং রিকোয়ার্মেন্ট এর পেছনে ৩ সপ্তাহ সময় দিলে কত হয়? ৩৭ হাজারের মত। তার মাণে, অ্যাভারেজ ৩০-৪০ হাজার বাজেট করতে না পারলে প্রফেশনাল এবং লাভজনক একটা ওয়েবসাইট বানানোর কথা ভুলে যান। ভিজিটিং কার্ডে দেয়ার জন্য বানাতে হলে কেবল ১ হাজার টাকা খরচ করে ডোমেইনটা রেজিস্ট্রেশন করুন।

তবে ওয়েবসাইটটা দিয়ে, ক্লায়েন্ট/কাস্টমারকে সেলস ফানেলের মধ্য দিয়ে নিয়ে টাকা ইনকাম করতে চাইলে. ইনভেস্ট করুন। আপনার যে কোন ধরনের অফলাইন বিজনেস এর একটা ওয়েবসাইট. মানে কার্যকরি ওয়েবসাইট থাকলে এবং ডিজিটাল মার্কেটিং করতে পারলে (ফেসবুক ক্যানভাসিং না) আপনি আপনার প্রফিটকে করতে পারেন আকাশচুম্বী!

এবার হয়ত বলবেন, ভাই তাহলে আমার তো অমুক বিজনেস. এটাকে মানি মেকিং একটা ওয়েবসাইটের সহায়তায় কিভাবে আনতে পারি?

ভাই, এখন যেটার কথা বলছেন. সেটাকে বলে কন্সাল্টিং। প্রফেশনাল সঙ্গীত শিল্পী যেখানে সেখানে গান গাইবে না। অন্যদিকে একজন প্রফেশনাল মেন্টরও যেখানে সেখানে আইডিয়া পয়দা করবে না। আপনার বিজনেসের মোটিভ, ট্রেন্ড এবং আইডিয়া নিয়ে ভাবতে হলে সময় প্রয়োজন. টিম প্রয়োজন। একটি ভাল টিমের হাতে আপনার কাজ দিলে. ভাল কিছু রেজাল্ট এমনিতেই পাবেন। প্রি প্রজেক্ট অ্যানালাইসিসে অনেক আইডিয়া সামনে আসবে। ভাই, “কেয়ামতের আগের দিন কাজ করলে, আপনাকে দিয়েই করাবো. কসম কইতাছি” টাইপের কাউকে একজন প্রো মেন্টর বা ওয়েব ডেভেলপমেন্ট প্রোর কি চিনতে খুব সমস্যা হয় মনে করেছেন?

তাই, ‘ধূর্ত’ নয়। নিজের ব্যবসাকে বড় করতে, ‘বুদ্ধিমান’ হোন। সময়ের সাথে অ্যাকশন নিন। মিথ্যা আশ্বাস গিয়ে গার্লফ্রেন্ডকে দিন। এবং. ব্যস্ত-যোগ্য-পেশাদার মানুষগুলোর পেশাগত সার্ভিস নিতে, তার পেশার সঠিক মূল্যায়ন করে কাজের কথা বলুন। এটা যে কোন পেশাজীবীর ক্ষেত্রে মনে রাখুন!

Add Comment

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুনলাইক ফেসবুক
+ +