Android এ জিরো থেকে হিরো [পর্ব-০১] :: নতুনদের জন্য কিছু দিকনির্দেশনা-Root থেকে Custom পর্যন্ত, ও কিছু প্রশ্নোত্তর

সুপ্রিয় টিউনার, আসসালামু আলাইকুম আশা করি সবাই ভালো আছেন। টিউন এর টাইটেল দেখেই হয়ত বুঝেই গেছেন এটা এন্ড্রয়েড নিয়ে চেইন বা সিরিজ টিউন।

Android

বর্তামানের জনপ্রিয় মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম। আর ওপেন সোর্স হওয়ায় এর মোড / চেঞ্জ সবাই করতে পারে। আমার এই সিরিজের মাধ্যমে নতুনদের কে সঠিক ভাবে কাজ করার প্রক্রিয়া, ধাপ ও বিভিন্ন ট্রিক সম্পর্কে জানানো হবে। তাই আশা করি সাথেই থাকবেন।

তার আগে একটা ধাপ জেনে নিন যেটা সবার জানা উচিৎ। এই ধাপেধাপে কাজ করলে ফোন নিয়ে কাস্টোমার কেয়ারে দৌড়াদৌড়ি করতে হবে না (আমার মনে হয়)

রুট > Xposed > কাস্টম রিকভারী > স্টক রমের ব্যাকাপ > ফার্মওয়ার ব্যাকাপ (Optional) > নতুন রম পোর্ট > নতুন রম দেওয়া.

আমার এই সিরিজে এই ধাপ গুলো বেশ ভালোভাবেই বলা হবে। অনেকে হয়ত এই ধাপ গুলো নিয়ে বিভিন্ন মত প্রকাশ করবে তাদের উদ্দ্যেশেঃ আমি আরো অনেক জিনিস স্কিপ / বাদ দিয়ে ছোট করে নিয়েছি।

আজ সিরিজ এর প্রথম পর্ব। আর এই পর্ব হচ্ছে কিছু দিক নির্দেশনা ও কিছু প্রশ্ন নিয়ে। টিউন এর পরেও যদি কোন প্রশ্ন থাকে তো টিউমেন্ট যোগাযোগ করতে পারেন
তো চলুন শুরু করা যাক।

Android এ জিরো থেকে হিরো

রুট কি, কেন, কিভাবে করবঃ

এই প্রশ্ন শুনলে মাঝে মাঝে তারে ব্লক মারতে ইচ্ছা করে। আরে ভাই ইতিমধ্যে হাজারো টিউন হয়ে গেছে এই টপিক নিয়ে, ইংরেজিতে নয় বাংলায় ‘রুট কি’ লিখে গুগলে সার্চ দিলে এত্ত বাংলা টিউন আসবে কল্পনাও করতে পারবেন না। আর প্রত্যেক টিউনে এত ভালভাবে বোঝানো হয়েছে যে একটা টিউন পরলেই খেল খতম।

তাও কেন এই প্রশ্ন করেন?

প্রশ্ন করার আগে একটু ভাবেন। আমাদের তো কেউ ফোন কেনার সময় একটা বই দিয়ে বলে নাই যে যা এই বই পড় আর কাস্টম রম দে।
আমরাও গুগলসার্চ করেছি, হয়ত সেটা ইংরেজিতে, কিন্তু এখনকার দিনে কত টিউনার সেই কথা গুলো বাংলায় লিখেছে।
সেটা কবে দেখবেন?
গুগল তো আর সার্চ করার জন্য আলাদা টাকা চায় না। তো যে জিনিস একবার আবিষ্কার হয়েছে আমাদের দিয়ে সে জিনিস আবার আবিষ্কার করাতে চান কেন? নিজেই একটু কষ্ট করে খুজে দেখুন। সব শেষ তাও রুট করতে পারলাম। ভাই মানুষ মাত্রই মরণশীল। কেউ ৬০ বছর আবার কেউ ১৬০। কিন্তু মরতেই হবে। সেরকমই রুট হবে। হয়ত সেটা দেরিতে। রুট করলাম, এখন,

আমার ফোনের জন্য কাস্টম রিকভারী দেনঃ

বলার আগে ভাবুন আপনার মডেল আর আমার মডেল এক নয়। তো যদি আপনি গুগলসার্চ করে না পান তো আমি কি করে দিব। সুখবর এই যে এখন পিসি ছাড়াই নিজের ফোন দিয়েই কাস্টম রিকভারী বানানো যায়। মজার কথা ট্রিকবিডিতেই সেই টিউন আছে। কিন্তু তাও পারেন না? এর জন্য একটা টিপস দেই আপনার ফোনের মডেল লিখে ফেসবুক সার্চ করে গ্রুপে এড হোন। সেখানে শুধু কাস্টম রিকভারী নয় রমও পেতে পারেন। কাস্টম রিকভারী আর রম আবার গুলিয়ে ফেইলেন না।

আর কাস্টম রম নিয়ে একটু বলিঃ

আমার দেয়া ধাপ গুলোতে কাস্টম রম সবার শেষে। যদি আগের ধাপ গুলো সাকসেসফুল হোন তবেই কাস্টম রম এর দিকে হাত বাড়ান নয়ত কাস্টোমার কেয়ারের দিকে হাত বাড়াতে হবে। কাস্টম রম নিয়ে সাধারণ কিছু ভুল আছে যেমনঃ

  • Custom Room / কাস্টম রুমঃ অনেকেই আমার কাছে এই শব্দ উচ্চারন করেছিলো। একবার Rom আর Room এর মাঝে তফাৎ তো দেখুন। অন্ধের মত না বলে অর্থ করে দেখুন, তো কি দাড়ায়?? আরে ভাই হেল্প চাইতে গিয়ে যদি এই সব হাবি জাবি বলেন তো হেল্প এর আশা কি করে করেন?
  • কাস্টম রম কিভাবে দিব? এই প্রশ্ন শুনে হতবাক হয়ে যাই, আসলেই এর ইন্সটান্ট উত্তর এখনো পাই নি। তাই Seen করে রেখে দেওয়া ছাড়া কোন করার থাকে না।
  • একজন বললো সে নাকি কাস্টম রম দিতে দিয়ে ফোন ব্রিক করছে। তো আমার কাছে ভালো করে রম দেওয়া শিখতে চাইলো।

আমি বললাম কি রিকভারী দেওয়া আছে আপনার?

উত্তরে বলল ”রিকভারী কি ভাইয়া?”

কেমনটা লাগে?? সেজন্যই টিউন এর শুরুতে ধাপ গুলো দিলাম ভাল করে মনে রাখুন।

আর একটা অনুরোধ এই সব হাবিজাবি প্রশ্ন না করে একটু গুগল সার্চ করুন। আর একটু ক্রিটিকাল প্রশ্ন করুন যাতে আমি না পারলেও আপনাদের মাধ্যমে আমারো শেখা হয়।

আরো প্রশ্ন থাকলে টিউমেন্ট বক্স

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুনলাইক ফেসবুক
+ +