“এসো মায়ের ভাষা শিখি “[বাংলা ভাষার শুদ্ধ উচ্চারণ চর্চা।]

আসসালামু আলাইকুম। সুপ্রিয় পাঠক পাঠিকা বৃন্দ, শুরুতেই সকলকে জানাই আন্তরিক মোবারকবাদ। আজ আমি আপনাদের কাছে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে উপস্থাপনের চেষ্টা করছি। আমার ১৭ বছরের শিক্ষকতা জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে একটি বড় ধরনের সমস্যা অনুধাবন করছি। আশা করি এটা, এই প্লাটফর্মে হয়তো প্রকাশ পাবে। সবই মহান আল্লাহর ইচ্ছা। সমস্যাটি হলো: প্রাথমিক শিক্ষা স্তর শেষে দেশের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা আমাদের মাতৃভাষা বাংলা সাবলীলভাবে পড়তে, লিখতে পারছে না। এর জন্য আমাদের শিক্ষক সমাজ কম-বেশি দায়ী। তবে এক্ষেত্রে অভিভাবকদের অসচেতনতা, আর শিক্ষার্থীদের অমনোযোগিতাই এর প্রধান অন‍্যতম কারণ‌। বিগত কয়েক বছরের শিক্ষাব্যবস্থার বেহাল দশার জন্য এই চিত্র আমরা দেখতে পাচ্ছি। পতিত দশায় যারা আজ  শিক্ষিত, তাদের অধিকাংশই কর্মক্ষেত্রে এসে অদূরদর্শীতার পরিচয় দিচ্ছেন,যা আমাদের জাতির জন্য অত্যন্ত লজ্জাজনক। এর জন্যে সকল শিক্ষাস্তর দায়ী। অন‍্যদিকে, প্রাথমিকে অবকাঠামোগত উন্নয়নের অভাব, শিক্ষক স্বল্পতা, ভবনের অপ্রতুলতা, ছাত্রছাত্রীদের তুলনায় শিক্ষক অনুপাত কম ইত্যাদি নানা সমস্যা বিদ‍্যমান। একজন শিক্ষক শ্রেণিকক্ষে এতো শিক্ষার্থীদের মধ্যে নির্ধারিত পাঠ‍্যাংশের শিখনফল কিভাবে অর্জন করাবেন? মাঠ পর্যায়ের শিক্ষক ছাড়া বিষয়টি উপরের মহল থেকে অতটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে না। এর জন্য শিক্ষকদের মানসিক ভাবে চরম বিপর্যয়ের মুখে ঠেলে দিচ্ছে ডিপার্টমেন্ট।।

এখন এ থেকে জাতিকে মুক্ত করতে হলে, শিক্ষাকারিকুলামে পরিবর্তন আনতে হবে। কারিকুলাম ঢেলে সাজাতে হবে। প্রচুর দক্ষ শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে। পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ, আসবাবপত্র, শিক্ষক নিয়োগ, অফিস সহকারী নিয়োগ, আইসিটি অভীজ্ঞ শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে, প্রতিটি স্কুলে।।

প্রতিরোধের উপায়: প্রতিটি শ্রেণিতে বাংলা বিষয়ে ধারাবাহিকভাবে ১ম থেকে শেষ অধ‍্যায় পর্যন্ত প্রতিটি অনুচ্ছেদ শুদ্ধ করে  পড়ার / লেখার অভ‍্যাস শিক্ষার্থীদের মাঝে গড়ে তুলতে হবে। এর জন্য আমাদের সম্মানিত শিক্ষক মহোদয়গণ প্রতিদিন ১০ মিনিট এ সম্পর্কে শুদ্ধ করে পড়ালেখা শেখাতে হবে, লেখার দক্ষতা বৃদ্ধি করতে আগ্ৰহী করে তুলতে বার বার অনুশীলন করাতে হবে। এতে আমরা কিছুটা হলেও ফল পাবো ইনশাআল্লাহ!!

শিশুদের মধ্যে মাতৃভাষা চর্চার জন্য প্রতিযোগিতার ব‍্যবস্থা ও সরকারকে হাতে নিতে হবে। প্রতিটি অনুচ্ছেদ পরীক্ষার জন্য সর্বোচ্চ দুই সপ্তাহ সময় দিতে হবে। এর জন্য ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে থেকে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করার উদ্যোগ নিতে হবে সরকারকে। এরজন্য প্রতিটি স্কুলে মাসে দুই হাজার টাকা ব‍্যয় করলেই আমার মনে হয় যথেষ্টই হবে। আমরা বাঙ্গালি, আমরা যদি নিজের মাতৃভাষাটা আগামী প্রজন্মের মধ্যে শুদ্ধ করে আয়ত্ত্ব করাতে না পারি, তাহলে আমাদের উন্নতির জন্যে প্রধান অন্তরায় হয়ে দাঁড়াবে। বিষয়টি সকলকে গভীর ভাবে বুঝার জন্য অনুরোধ করছি।
পরিশেষে আমার এ শুদ্ধ বাংলা চর্চা আইডিয়াটি প্রকাশ করতে গিয়ে যদি কোনো ভুল করে থাকি, তাহলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে ক্ষমা করে দেবেন। ❤️❤️❤️ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলুন, আবারো ধন্যবাদ সবাইকে।☘️☘️☘️

Add Comment

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুনলাইক ফেসবুক
+ +