ব্লগিং শুরু করার আগে ৭ টি বিষয় আপনার জেনে রাখা উচিত

ব্লগিং

আপনি লিখতে পছন্দ করেন এবং আপনার কাছে এমন জিনিস রয়েছে। আপনি একটি ব্লগ শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন! তবে আপনি যদি এমন কিছু হন তবে আমি কয়েক মাস আগে থাকতাম এবং ব্লগ শুরু করার বিষয়ে কিছুই জানতাম না তবে এক মিনিট ধরে থাকুন।

অনেক নতুন ব্লগার নিরুৎসাহিত হন এবং হাল ছেড়ে দেন কারণ তারা কোনও ব্লগ শুরু করার আগে কোনও ভিত্তি তৈরি করেনি এবং কী প্রত্যাশা করা উচিত তা জানেন না। যেহেতু আমি চাই না যে এটি আপনার সাথে ঘটুক তাই এখানে ব্লগ শুরু করার আগে যে জিনিসগুলি আপনার জানা উচিত তা বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। অবশ্যই শেষ পর্যন্ত পড়বেন তো চলুন শুরু করা যাক

১. ব্লগিং করতে অনেক চেষ্টা ও পরিশ্রমের প্রয়োজন

এক মুহুর্তের জন্য ভাবতে বোকা বোধ করবেন না এটি দেখতে যতটা সহজ। আপনাকে লেখার, পুনর্লিখন, সম্পাদনা, গবেষণা, চিত্র ইত্যাদির জন্য সময় এবং শক্তি প্রয়োগ করতে হবে এবং প্রকাশিত হলে আপনাকে বিভিন্ন নেটওয়ার্কে আপনার ব্লগ প্রচার করতেও সময় ব্যয় করতে হবে। পরিশ্রম করার জন্য প্রস্তুত থাকুন। এছাড়াও শুরুতে খুব বেশি ট্রাপিক না পাওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকুন।

২. এটি অর্থো উপার্জনের সহজতম উপায় নয়

আমরা সকলেই তাদের ব্লগগুলির মাধ্যমে অনলাইনে প্রচুর অর্থো উপার্জনকারী ব্লগারদের সম্পর্কে পড়ি। ঠিক আছে জেনে রাখুন যে এই পর্যায়ে পৌঁছাতে কয়েক বছরের কাজ এবং ধৈর্য লাগবে। আপনি যদি দ্রুত উপার্জন শুরু করতে চান তবে ব্লগ শুরুর চেয়ে আরও দ্রুত উপায়গুলি থাকতে পারে।

৩. বিনামূল্য ও ছোট ব্লগ দিয়ে ব্লগিং শুরু করতে পারেন

আপনি যদি প্রথমবারের মতো কোনও ব্লগ শুরু করেন তবে বিষয়গুলি কীভাবে চলবে তা আপনি পুরোপুরি নিশ্চিত নন। আপনি এটি পছন্দ করতে পারেন বা আপনি কয়েক সপ্তাহ বা মাস পরে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন যে ব্লগিং আসলে আপনার জিনিস নয়। সুতরাং একটি বিনামূল্যে সাইট দিয়ে ছোট শুরু করার জন্য আমার পরামর্শ রইলো।

ওয়ার্ডপ্রেস এবং ব্লগার উভয়ই দুর্দান্ত প্ল্যাটফর্ম যেখানে আপনি অ্যাকাউন্ট দিয়ে ব্লগিং শুরু করতে পারেন। এটি যদি আপনি চালিয়ে যেতে চান তবে এটি নির্ধারণ করুন। তবেই স্ব-হোস্টিং এবং অর্থ প্রদানের পরিকল্পনা করুন

৪. প্রয়োজনীয় ও আকর্ষনীয় কন্টেন্ট লিখতে হবে

আপনার ট্রাপিক আপনার লেখার জন্য আপনার কাছে আসবেন এটি নয় যে আপনার একটি হত্যাকারী ব্লগ থিম বা একটি মজার ব্লগের নাম। ট্রাপিক তৈরির সর্বোত্তম উপায় হলো লিখিত এবং আকর্ষনীয় কন্টেন্ট স্থাপন করা এবং ধারাবাহিকভাবে এটি করা। আকর্ষণীয় সামগ্রী ভাগ হয়ে যায় এবং ধীরে ধীরে আপনার প্রসারকে প্রসারিত করে

৫. ব্লগিং মানে সামাজিক নেটওয়ার্কিং তৈরী করা

একজন ব্লগার হিসাবে আপনাকে আপনার মধ্যে এবং বাইরেও অন্য ব্লগারদের সাথে কথোপকথন এবং সংযোগ স্থাপন করতে হবে। এটি আপনার নেটওয়ার্ককে প্রসারিত করার এবং বৃহত্তর দর্শকদের কাছে পৌঁছানোর একটি নিশ্চিত উপায়। ব্লগাররা একটি নিখুঁত সম্প্রদায় গঠন করে এবং অতিথি পোস্টগুলি সামাজিক শেয়ার ইত্যাদির মাধ্যমে একে অপরকে নিয়মিতভাবে সহায়তা করে I

৬. আপনাকে নতুন জিনিস শিখতে হবে

আপনি ইতিমধ্যে কোনও প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে না থাকলে ব্লগিংয়ের বিষয়ে সিরিয়াস হওয়ার সাথে সাথে আপনাকে অনেক নতুন দক্ষতা অর্জন করতে হবে এমন সম্ভাবনা রয়েছে। প্রত্যেক ব্লগারকে এসইও এবং বিশ্লেষণগুলি বোঝার দরকার হয় এবং সৌজন্য গুগল যে পরিবর্তনগুলি ঘটাতে থাকে সেগুলি পর্যবেক্ষণ করা উচিত। সুসংবাদটি হলো এখানে প্রচুর সংস্থান আছে যা টিপস এবং গাইডেন্স প্রদান করে।

৭. ব্লগিংকে নিজের বিনোদন হিসেবে নিতে হবে

আপনি আপনার ব্লগটি শুরু করার সময় মনে রাখা সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো আসল হওয়া এবং আপনার পাঠকদের আপনি কে আপনার নিজস্ব স্টাইল এবং ভয়েস বিকাশ করুন এবং আপনি যা বোধ করছেন তা বলতে ভয় পাবেন না। আপনি যা পছন্দ করেন সে সম্পর্কে লিখুন এবং নিজে উপভোগ করুন। আমি জানি আমি বলেছিলাম যে ব্লগিং হলো কঠোর পরিশ্রম তবে এটি এমন এক ধরণের কঠোর পরিশ্রম যা মজাদারও হতে পারে।

আমি আশা করি আপনি নিজের ব্লগ শুরু করার বিষয়ে সেট করার সাথে সাথে আপনি এই চিন্তাভাবনাগুলিকে দরকারী বলে মনে করছেন। আমার পরবর্তী পোস্টগুলিতে আরো বিস্তারিত আলোচনা করবো সেই পর্যন্ত ভালো থাকুন।

Add Comment

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুনলাইক ফেসবুক
+ +